লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ এর জীবনী

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক। আশা করি আপনি অনেক ভাল আছেন। আবারো আপনাদের সামনে নতুন একটি টিউটোরিয়াল নিয়ে হাজির হলাম। আজকে আমরা একজন সেনাপ্রধানের জীবনী সম্পর্কে জানবো। তার নাম হল লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। বর্তমান তিনি বাংলাদেশের সেনাপ্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন। 

যেহেতু লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন নতুন সেনাপ্রধান। তাই তার সম্পর্কে আমাদের অনেক কিছু অজানা রয়েছে। লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ পরিচয়,এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ এর জন্মস্থান ও এসএমএস শফিউদ্দিন আহমেদ কততম সেনাপ্রধান ইত্যাদি বিষয়ে জানার অনেকের আগ্রহ। এই কারণে আজকের আর্টিকেল মূলত লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ এর জীবনী সম্পর্কে আলোচনা করা হবে। আশা করি,আমাদের আর্টিকেল ধৈর্য সহকারে পড়বেন। 

লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ জন্মস্থান

বর্তমান আমাদের দেশের সেনাপ্রধান লেফটেন্যান্ট এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ ১ ডিসেম্বর ১৯৬৩ সালে খুলনার একটি স্বনামধন্য মুসলিম ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মরহুম শেখ মোহাম্মদ রোকন উদ্দিন আহমেদ। তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। এর পাশাপাশি অধ্যাপক এবং সমাজকর্মী হিসেবে কাজ করতেন। 

লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদের শিক্ষাজীবন

ছাত্র জীবন থেকেই জেনারেল এস এম সফিউদ্দিন আহমেদ অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন। তিনি ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজের প্রাক্তন একজন শিক্ষার্থী ছিলেন। শফিউদ্দিন আহমেদ দেশে-বিদেশের অনেক গুলো সামরিক কোর্সে অংশগ্রহণ করেন।এছাড়াও তিনি PLA জাতীয় প্রতিরক্ষা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইন্টারন্যাশনাল সিম্পোজিয়াম কোর্স ও ডিফেন্স অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ কোর্সে অংশ নেন। 

তিনি জাতীয় প্রতিরক্ষা বিশ্ববিদ্যালয়, ওয়াশিংটন ডিসি থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস (বিইউপি) থেকে সিকিউরিটি স্টাডিজের উন্নয়নে প্রথম শ্রেণীর সাথে এমফিল ডিগ্রি লাভ করেন এবং এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডিতে অধ্যয়নরত।

আবার তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এমবিএ) ডিগ্রি অর্জন করেছেন, যেখানে তিনি প্রথম স্থান অধিকার করেছিলেন। প্রথম স্থান অর্জন করার কারণে এমআইএসটি স্বর্ণপদক পেয়েছিলেন। সবশেষে তিনি ২০১২ সালের ২৮ আগস্ট এ পিএইচডি ডিগ্রি সম্পন্ন করেন বিইউপি ইউনিভার্সিটি থেকে। এই ছিল লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদের শিক্ষাজীবন ও শিক্ষাস্তর। 

লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ এর জীবনী

জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদের জন্মস্থান ও জন্ম তারিখ জানতে পেরেছেন। এখন তার সংক্ষিপ্ত জীবনী আপনাদের সামনে প্রকাশ করবো। খুলনা শহরের সম্ভ্রান্ত মুসলিম ও মুক্তিযুদ্ধ পরিবারের সন্তান ছিলেন তিনি। পড়াশোনার দিক থেকে সকল স্তরে তিনি সন্তুষ্টজনক ফলাফল অর্জন করেন। ভালো ফলাফল অর্জন করার কারণে তিনি শিক্ষা স্তরের বিভিন্ন পর্যায়ে পুরস্কার অর্জন করেন। 

এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ ব্যক্তিজীবনে কথা বলতে গেলে ছোট্ট একটি সংসার। তার সহধর্মিণী নাম নূরজাহান আহমেদ। তাদের দম্পতি জীবনে দুই কন্যা রয়েছে। সপরিবারে তারা ঢাকা শহরে বসবাস করছে। 

কর্মজীবনে জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ ১৯৮৩ সালের ২৩ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের ৪র্থ ব্যাটালিয়নের আওতাধীন ও নবম বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি দীর্ঘমেয়াদি কোর্সে পদাতিক কোরে কমিশন লাভ করেন। কমিশন লাভ করার পরবর্তী সময়ে তিনি পার্বত্য চট্টগ্রামে কাউন্টার ইনসার্জেন্সি অপারেশন এলাকায় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টে যোগদান করার মাধ্যমে তার সামরিক কর্মজীবন শুরু করেন।

বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমির ১ম ব্যাটালিয়ন কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তিনি সেনাবাহিনী সদরদপ্তরের জেনারেল স্টাফ শাখায়, সামরিক প্রশিক্ষণ পরিদপ্তরে সামরিক প্রশিক্ষণের পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও তিনি ডিভিশন ও ঘাটইল এলাকার জেনারেল অফিসার কমান্ডিং ও অঞ্চলিক কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ২০১২ সালে। 

২০২০ সালের অক্টোবর মাসে সেনাবাহিনীর কোর অব মিলিটারি পুলিশের ৬ষ্ঠ কর্নেল কমান্ড্যান্ট হিসাবে অভিষেক করেন। সাভার সেনানিবাসে কোর অব মিলিটারি পুলিশ সেন্টার অ্যান্ড স্কুলে তিনি ৬ষ্ঠ কর্নেল কমান্ড্যান্ট হিসাবে অভিষেক করেন। এভাবে তিনি নিজেকে একজন সাধারণ সামরিক বাহিনী থেকে পদোন্নতি লাভ করার মাধ্যমে জেনারেল পদ অর্জন করেন। 

কর্মজীবনে তিনি আরও একটি পেশার সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি জাতীয় প্রতিরক্ষা কলেজের সিনিয়র ডাইরেক্টিং স্টাফ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এর পাশাপাশি তিনি বাংলাদেশের সেনাবাহিনীতে কাজ করার পাশাপাশি জাতিসংঘের অনেক মিশনে অংশগ্রহণ করেন। এর মধ্যে অন্যতম একটি মিশন হল মিনুসকা। তিনি অফ্রিকান প্রজাতন্ত্র এ জাতিসংঘের কার্যক্রম মিনুসকা এর ডেপুটি ফোর্স কমান্ডার হিসেবে ২০১৪-২০১৬ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

দায়িত্ব পালন করার সময় তিনি সব সময় সততা ও সাহসের সাথে কাজ করতেন।এই জন্য তাকে এসআরএসজি কর্তৃক উদ্ধৃতি পেয়েছেন। শুধু তার সাহসিকতা ও অসাধারণ পারফরমেন্সের জন্য। যা অনেক সেনাপ্রধানের ভাগ্যে এখনো জোটে নি। 

সেনা প্রধান হওয়ার আগে তিনি কোয়ার্টারমাস্টার জেনারেল (কিউএমজি) হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। তারপর সর্বশেষ তাকে গণভবনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে জেনারেল পদমর্যাদার ব্যাজ পরানো হয়। নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ শাহীন ইকবাল এবং বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার মার্শাল শেখ আব্দুল হান্নান জেনারেল পদমর্যাদার ব্যাজ দিয়ে নতুন সেনাপ্রধানকে ভূষিত করেন। তাকে সেনাবাহিনীর দায়িত্ব দেওয়া হয় ২৪ জুন ২০২১ তারিখ সকালে। 

নতুন সেনাপ্রধান ২০২১ এর পরিচয়

নতুন সেনাপ্রধানের নাম লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সেনাপ্রধান হিসেবে নিয়োগপত্র লাভ করেন, যা ২৪ জুন ২০২১ থেকে পরবর্তী ৩ বছরের জন্য কার্যকর হয়। তিনি ১৭তম সেনাপ্রধান হিসেবে জেনারেল আজিজ আহমেদের স্থলাভিষিক্ত হন।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান কে ২০২২

বর্তমান বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কোয়ার্টারমাস্টার থেকে তিনি তিন বছরের জন্য সেনাবাহিনীর নতুন প্রধান হিসেবে মনোনীত করা হয়, যা ২৪ জুন ২০২১ সালে কার্যকর করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

এসএমএস শফিউদ্দিন আহমেদ কততম সেনাপ্রধান 

বর্তমান বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। তিনি ১৭তম সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। 

বাংলাদেশের সেনা প্রধানের তালিকা

  1. মেজর জেনারেল কাজী মুহাম্মদ শফিউল্লাহ বীর উত্তম।
  2. মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান বীর উত্তম।
  3. মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীর উত্তম।
  4. লেফটেন্যান্ট জেনারেল হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।
  5. লেফটেন্যান্ট জেনারেল মোহাম্মদ আতিকুর রহমান।
  6. লেফটেন্যান্ট জেনারেলআবু সালেহ মোহাম্মদ নাসিম বীর বিক্রম।
  7. লেফটেন্যান্ট জেনারেল নুরউদ্দীন খান।
  8. লেফটেন্যান্ট জেনারেল মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান
  9. জেনারেল মুস্তাফিজুর রহমান বীর বিক্রম।
  10. লেফটেন্যান্ট জেনারেল এম হারুন-অর-রশিদ।
  11. লেফটেন্যান্ট জেনারেল হাসান মশহুদ চৌধুরী
  12. জেনারেল মঈন উদ্দিন আহমেদ।
  13. জেনারেল আবদুল মুবীন।
  14. লেফটেন্যান্ট জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক।
  15. জেনারেল ইকবাল করিম ভূঁইয়া।
  16. লেফটেন্যান্ট জেনারেল আজিজ আহমেদ।
  17. লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ।

উপসংহার

এই ছিল আজকে লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ এর জীবনী সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা। জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদের জীবনী থেকে আমরা অনেক কিছু শিখতে পেরেছি। বিশেষ করে মানুষ কিভাবে ছোট একটি অবস্থান থেকে বড় অবস্থানে উত্তীর্ণ হতে পারে। তার বাস্তব একটি প্রমাণ হল জেনারেল এস এম শফিক উদ্দিন আহমেদ। 

এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ যখন সামরিক বাহিনীতে যোগদান করেন তখন কিন্তু তিনি একজন সাধারণ অফিসার ছিলেন। তারপর থেকে তিনি বিভিন্ন মিশনে অংশগ্রহণ করেন। তার সাহসিকতা ও বুদ্ধিমত্তা দিয়ে সে সকল মিশন সাকসেসফুল হয়। এরপর থেকেই এস এম শফিউদ্দিন আহমেদের পদোন্নতি শুরু হয়। 

তার পদোন্নতি শুরু হতে হতে সর্বশেষ তিনি বাংলাদেশের সেনা প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন। অর্থাৎ বাংলাদেশের সকল সেনাবাহিনীর তিনি প্রধান। এই কারণে অবশ্যই আমাদের এস এম জেনারেল শফিউদ্দিন আহমেদের জীবনী থেকে অবশ্যই শিক্ষা অর্জন করতে হবে। সে ছোট একজন অফিসার থেকে যদি দেশের সেনাপ্রধানের দায়িত্ব পালন করে। তাহলে আমি আপনি কেন পারব না। এই কারণে অবশ্যই আপনাকে সাহসিকতা ও সঠিক বুদ্ধিমত্তা দিয়ে যেকোন কাজে মনোনিবেশ করতে হবে। তাহলে ইনশাল্লাহ একদিন সফলতার মুখ দেখতে পারবেন। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.